Search
  • faridahmedreza

আমি রোজ কুরআন অধ্যয়ন করি (?)

Updated: May 7

কুরআন বুঝে পড়ার কথা আমি তাঁকে বলছিলাম। জবাবে তিনি আত্মতৃপ্তির সাথে বললেন,‎

‎-‎ ‎‘আলহামদুলিল্লাহ। আমি রোজ অর্থসহ কুরআন অধ্যয়ন করি।’‎

তিনি আমার পুরানো বন্ধু। নাম বলার দরকার নেই। আমি জানি, তিনি খুব ভালো মানুষ। নিয়মিত ‎নামাজ-রোজা করেন। সততার সাথে জীবনযাপন করতে চেষ্টা করেন। ‎

আমি বললাম, ‘আপনি কি কুরআনের ভাষা জানেন? মানে, আরবী ভাষা?’ ‎

‎-‎ ‎‘না, ভাষা জানি না। আমার কাছে বাংলা এবং ইংরেজি তাফসির আছে। সেখান থেকে পাঠ ‎করি।’‎

‎-‎ ‎ ‘এ তাফসির যিনি লিখেছেন তিনি কি সঠিকভাবে এর অনুবাদ করতে পেরেছেন?’ আমি প্রশ্ন ‎রাখলাম। ‎

‎-‎ ‎‘ অবশ্যই। এর লেখক ...... । কতবড় আলেম। দেশ-বিদেশে তাঁর কত সুনাম।’‎

‎-‎ ‎‘তাঁর যোগ্যতা নিয়ে আমি প্রশ্ন তুলছি না। আমার প্রশ্ন হলো, কুরআন অনুবাদ করার ক্ষমতা ‎কি কারো আছে?’ ‎

‎-‎ ‎‘তাঁর সে যোগ্যতা অবশ্যই আছে, এ ব্যাপারে আমি নিশ্চিত।’‎

‎-‎ ‎’কিন্তু আলেমগণ তো ভিন্ন কথা বলেন।’‎

‎-‎ ‎‘আলেমগণ কী বলেন? ‘ তাঁর কন্ঠে প্রবল ঔৎসক্য।

আমি বললাম, ‘ আলেমগণ বলেন, কুরআনের অনুবাদ করা সম্ভব নয়। আমরা কুরআন পাঠ ‎করে যা বুঝি এর অনুবাদ আমরা করি। এটাকে কুরআনের অনুবাদ না বলে ‘ভাবের অনুবাদ ‎বলা-ই যুক্তিযুক্ত। ‎

‎-‎ ‎‘কথাটা পরিষ্কার হয়নি। আরেকটু ব্যাখ্যা করুন।’ তাঁর কন্ঠে আকুতি ঝরে পড়ে।

‎-‎ ‎’কারো মাতৃভাষা যদি আরবী হয় তা হলেও তাঁর পক্ষে কুরআনের অনুবাদ করা সম্ভব নয়। ‎এর অনেক কারণ আছে।’‎

‎-‎ ‎‘দুয়েকটা কারণ বলুন।’ ‎

‎-‎ ‎‘প্রথমতঃ কুরআন যখন নাজিল হয় তখন রচনা-শৈলী এবং শব্দ-সম্ভারের দিক দিয়ে আরবী ‎ভাষা পৃথিবীর সবচেয়ে সমৃদ্ধ ভাষা ছিল। এখনো আরবী ভাষার সে ঐতিহ্য অক্ষুণ্ণ রয়েছে। ‎এর বাক-বিন্যাস এমন যে একটি বাক্য বা বাক্যাংশ একই সাথে বহু অর্থ ধারণ করতে পারে। ‎অনেক সময় কোন অর্থকেই মূল টেক্সট থেকে বিচ্ছিন্ন করার উপায় থাকে না। পৃথিবীর ‎কোন ভাষার এক সাথে এগুলো ধারণ করার ক্ষমতা নেই। দ্বিতীয়তঃ আরবী ভাষা শব্দ-‎সম্ভার এবং প্রতিশব্দের দিক দিয়ে এতটা সমৃদ্ধ যে কোন কোন বিষয়ের দু‘ থেকে আড়াইশ’ ‎প্রতিশব্দ আছে। প্রতিটি প্রতিশব্দ স্বতন্ত্র এবং বিশিষ্ট। ইংরেজি ভাষায় অনেক প্রতিশব্দ ‎আছে। বাংলাভাষার প্রতিশব্দ খুবই সীমিত। কুরআনের প্রতিটি শব্দ এবং বাক্যের মধ্যে এর ‎অবস্থান একটি বিশেষ অর্থ বহন করে। নানা সীমাবদ্ধতার কারণে অনুবাদের সময় তা ‎হারিয়ে যায়। তাই কুরআনের কোন অনুবাদকেই কুরআনের অনুবাদ বলা ঠিক নয়। ‎ভাবানুবাদ বলাই যুক্তি-সঙ্গত।’ ‎

‎-‎ ‎‘তা হলে আমার কুরআন অধ্যয়নের কী হবে?’ তিনি হতাশ কন্ঠে জিজ্ঞেস করলেন।

‎-‎ ‎ ‘আল্লাহর কালাম বুঝতে চাইলে এর ভাষা জানা ছাড়া কোন পথ নেই। অনুবাদ পড়া মানে ‎কুরআন অধ্যয়ন নয়।’ আমি জবাব দিলাম। ‎

আমি ভাবছিলাম, তাঁর প্রশ্ন হয়তো এখানেই শেষ হয়ে যাবে। কিন্তু তা হয়নি। তিনি আরো কঠিন ‎একটি প্রশ্ন ছোঁড়ে দিলেন। ‎

বললেন,‎

‎-‎ ‎‘কিন্তু যারা কুরআনের ভাষা না জেনে ইসলামের ব্যাখ্যা দেয় তাদের কী হবে?’‎

আমি বিনীত কন্ঠে বললাম, ‘দুঃখিত, এ প্রশ্নের উত্তর আমার জানা নেই।’‎




#perspective #outlook #newlife

3 views

©2020 by Farid A Reza. Proudly created with Wix.com

This site was designed with the
.com
website builder. Create your website today.
Start Now